ইমরুল কায়েসকে নিয়ে নির্বাচকদের ছেলে খেলা, নতুন করে সে আগুনে ঘি ঢাললেন নির্বাচক আব্দুর রাজ্জাক


নিঃসন্দেহে বাংলাদেশ ক্রিকেটের সবচেয়ে অভাগা ক্রিকেটার ইমরুল কায়েস। ক্যারিয়ারের অধিকাংশ সময়ই দলে যাওয়া-আসার মধ্যেই ছিলেন এই ব্যাটসম্যান। জাতীয় দলে এক দশক কাটানোর পর অধিকাংশ ক্রিকেটারই তারকা খ্যাতি পেয়ে থাকেন। তবে ইমরুলের প্রসঙ্গ একদমই ভিন্ন তারকাখ্যাতি তো দূরের কথা তিনি দলে থাকার নিশ্চয়তাই ঠিকমতো কখনো পাননি ‘।

এমনকি দলে যখন নিয়মিত পারফর্ম করে যাচ্ছিলেন তখনো দু-একটা ম্যাচ অফ ফ্রম গেলে তার বিকল্প চিন্তা করা হতো। অথচ বর্তমানে প্রতিভাবান ট্যাগ লাগিয়ে অনেক ক্রিকেটারই বছরের-পর-বছর পারফর্ম না করে দলের অটোমেটিক চয়েস হয়ে টিকে আছেন। তামিমের সাথে বাংলাদেশ ক্রিকেট ইতিহাসের ই সেরা ওপেনিং জুটি হিসেবে খেললেও ‘।

ক্যারিয়ারের অধিকাংশ সময়েই কোন পাকাপোক্ত ব্যাটিং অর্ডার ছিল না ইমরুলের। যখন যেখানে প্রয়োজন ঠিক সেখানেই ইমরুলকে খেলানো হতো। এমনকি সর্বশেষ জাতীয় দল থেকে তিনি যখন বাদ পড়েছিলেন সে বছর এক ওয়ানডে সিরিজে দুটি সেঞ্চুরি করেছিলেন ইমরুল। এছাড়াও বাদ পড়ার আগে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তার সর্বশেষ তিন বছরের এভারেজ ছিল ৪৫.৪৫। এ ধরনের পারফর্মেন্সের পড় নির্বাচকদের আস্থা জয় করতে না পারলেও সমর্থকদের মন ঠিকই জয় করে নিয়েছিলেন ইমরুল ‘।

ফলে বর্তমানে অনেক টাইগার সমর্থকই ইমরুলকে আবার জাতীয় দলের জার্সিতে দেখতে চান। এমনকি বর্তমান ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবালের ২০২৩ বিশ্বকাপ পরিকল্পনায় ইমরুল খুব ভালোভাবে আছেন। তবে বিপত্তিটা বাধিয়েছেন টিম ম্যানেজমেন্ট এবং নির্বাচকেরা। ইমরুল কায়েস যে তাদের চিন্তাভাবনাতেই নেই। সম্প্রতি বাংলাদেশের নির্বাচক আব্দুর রাজ্জাককে প্রশ্ন করা হয়েছিল নিয়মিত পারফর্ম করার পরও ইমরুল সুযোগ পাচ্ছে না কেন?

এ প্রশ্নের উত্তরে আব্দুর রাজ্জাক বলেন”আপনি ইমরুলের কথা বলছেন ইমরুল বেশ কয়েকদিন যাবত অফ ফর্মে রয়েছে জাতীয় লিগে ও তার পারফরম্যান্স খুব একটা ভালো ছিল না। বিগত ম্যাচে নির্দ্বিধায় তিনি খুব ভালো পারফর্ম করেছেন। কিন্তু এর আগে তার তেমন কোন বলার মতো পারফর্মেন্স এ বছর ছিল না” ‘।

নিঃসন্দেহে বাংলাদেশ জাতীয় দলের নির্বাচক আব্দুর রাজ্জাক কোন ভুল কথা বলেননি। পারফর্ম না করলে কেউই সুযোগ পাবে না এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু বিপিএলের সামনের ম্যাচ গুলোতে পারফর্ম করে ইমরুল যদি সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক দের একজন হন। তারপরও যদি তাকে দলে সুযোগ না দেওয়া হয় তাহলে সেটাও কি ঠিক হবে?