ভারতে এবার ছাত্রীদের কে হিজাব খুলতে বাদ্য করে এবং বোরকা খোলার ভিডিও করে এক শিক্ষক (ভিডিও তে দেখুন)

ভারতে এবার ছাত্রীদের কে হিজাব খুলতে বাদ্য করে এবং বোরকা খোলার ভিডিও করে এক শিক্ষক (ভিডিও তে দেখুন)
Students of Kasturba Balika government school in Shimoga forced to remove niqab to attend classes. The teacher is laughing shamelessly in this video.

হিজাব পরতে না দেওয়া প্রকাশ্যে কাপড় খুলে ফেলার শামিল : অভিমত ভারতীয় নারীদের , বাচ্চাকে স্কুলে দিতে গেলে গেটেই কর্ণাটক প্রশাসনের লোকজন আটকাচ্ছেন মায়েদের। তারা তাদের বোরকা সেখানেই দাঁড়িয়ে খুলে ফেলছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এসব ভিডিও ছড়িয়ে পড়ছে। স্ক্রলডটইন

টুইটারের ভিডিওতে আরেকটি স্কুলে একাধিক ছাত্রীদের জড়ো হয়ে বোরকা খুলে ফেলতে দেখা যায়। পাশে দাঁড়িয়ে স্কুল শিক্ষক হাসছেন।

ভারতের মত একটি রক্ষণশীল দেশে যেখানে নারীদেরকে ঢেকে রাখতে বাধ্য করা হয়, কর্ণাটকের এসব দৃশ্যগুলো তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করেছে যা সংহতি নয় মোটেও। ইপ্সিতা চক্রবর্তী, জোহানা দীক্ষা, তাবাসসুম বার্নআগারওয়ালার মত ভারতীয় নারীরা মনে করেন, বোরকা খুলে নেওয়া মানে প্রকাশ্যে নারীদের কাপড় খুলে নেওয়ার মতই।

স্কুলের গেটগুলোতে প্রশাসনের লোকজন ও শিক্ষকরা দাঁড়িয়ে আছেন। বাচ্চাদের স্কুলে দিতে এসে মুসলিম নারীদের প্রথমে বোরকা খুলতে হচ্ছে, তারপর স্কার্ফ এবং তা ব্যাগে ভরে রাখতে হচ্ছে। এসবই হচ্ছে প্রকাশ্যে দিবালোকে।

মান্দিয়া জেলায় সোমবার একটি স্কুলের গেটে এধরনের দৃশ্য দেখে বেঙ্গালুরের ৪৩ বছরের নারী শান্তম্মা নারায়না বললেন, এটা ভুল। তারা স্কুলের গেটে অপদস্ত হচ্ছেন। এটা শুধু অপমান নয়, মুসলিম নারীদের ধর্মবিশ্বাস যদি তারা বোরকা পরে থাকেন তাহলে প্রশাসনের লোকজন কেনো তাদের তা খুলে ফেলতে বাধ্য করছেন।

কোলকাতার মমতা রায় বলেন, পাঁচজন মানুষের সামনে আমাকে কাপড় খুলতে বাধ্য করা হলে, তারা আমাকে দেখতে থাকলে তা অবশ্যই আমি পছন্দ করব না।

বেঙ্গালুরুর ৩০ বছর বয়সী জনসংযোগ কর্মকর্তা বিদিতা দেবনাথ বলেন, নারীদেরকে পাবলিক স্পেসে বোরকা খুলে ফেলতে বলা ‘একজন ব্যক্তির পরিচয় হরণের সমান। এটা জনসমক্ষে কাপড় খুলে ফেলার মত। নারীদের সঙ্গে এ আচরণ ভাষায় প্রকাশের অযোগ্য’।