রংপুরে যৌতুক নিয়ে দ্বন্দ্ব, বিয়ের ৬ মাস না যেতেই লাশ হলেন বিথী


রংপুরের বদরগঞ্জে বিয়ের পর ছয় মাস না যেতেই লাশ হয়ে ফিরলেন বৃষ্টি আখতার বিথী(১৮)। মঙ্গলবার (২২ফেব্রুয়ারি) সকালে স্বামীর বাড়ি থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। চ্যানেল24

পুলিশ জানায়, নিহত বৃষ্টি আখতার বিথী উপজেলার লোহানীপাড়া ইউনিয়নের কাঁচাবাড়ি এলাকার খামার পাড়ার বুলবুল মিয়ার মেয়ে। মাত্র ছয় মাস আগে পারিবারিকভাবে তার বিয়ে হয় কুতুবপুর ইউনিয়নের সোডাপীর এলাকার এমদাদুল ইসলামের ছেলে লিটন মিয়ার(২১) সাথে।

বেশ কিছুদিন থেকে লিটন তার স্ত্রীকে শ্বশুরবাড়ি থেকে মোটা অঙ্কের টাকা যৌতুক হিসেবে আনতে চাপ দিচ্ছিলেন। কিন্তু এতে রাজি হননি বিথী। এনিয়ে ক’দিন ধরে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছিল। এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার সকালে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রথমে কথা কাটাকাটি হয়। পরে স্বামী লিটন মিয়া ক্ষুব্ধ হয়ে স্ত্রী বৃষ্টি আখতারকে শারীরিক নির্যাতন করলে সঙ্গে সঙ্গেই তার মৃত্যু হয়।

তবে ঘটনা ধামাচাপা দিতে বিথীর লাশ সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে রেখে সেটিকে আত্মহত্যা বলে এলাকায় প্রচার করা হয়। খবর পেয়ে বদরগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলেও লাশ ঝুলন্ত অবস্থায় পায়নি। এছাড়া আত্মগোপন করায় স্বামীসহ পরিবারের কাউকেই খুঁজে পায়নি পুলিশ।

এবিষয়ে থানায় যোগাযোগ করা হলে ওসি হাবিবুর রহমান বলেন, লাশের মাথায় ও কপালে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাতে অনুমান করা যায় মৃত্যুর আগে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন বিথী। তদন্তের পর বিস্তারিত জানানো যাবে বলেও জানান এই কর্মকর্তা।