সেই ব্রিজেই নিজেকে উড়িয়ে দিলেন ইউক্রেনীয় সেনা এই জন্য রুশ সেনাদের ট্যাংক বহর প্রবেশ করতে পারেনি ইউক্রেনে।


ইউক্রেনের খারসন শহরে ঘড়িতে সময় তখন শনিবার সকাল আটটা। রুশ নিয়ন্ত্রিত ক্রিমিয়া থেকে ইউক্রেনের সঙ্গে সংযুক্ত করেছে এক ব্রিজ। সেই সময় রুশ নিয়ন্ত্রিত এলাকার পাশ থেকে শোনা যায় মুহর্মুহ বিস্ফোরণের শব্দ। সকাল ১১টার দিকে ধোঁয়ার আচ্ছন্ন হয়ে যায় পুরো এলাকায় আাগুন ধরে যায় আশেপাশেও ঘাসগুলোতেও।

পরে জানা যায় ক্রিমিয়া থেকে ইউক্রেনে আসার একমাত্র রাস্তা ওই ব্রিজটি ধ্বংস করতে নিজেকেই উড়িয়ে দেন এক ইউক্রেনীয় সেনা। তার এই আত্মত্যাগের কারণেই রুশ সেনাদের ট্যাংক বহর প্রবেশ করতে পারেনি ইউক্রেনে। ভিটালি সাকুন ভোলোডিমিরোভিচ নামে ওই সেনাকে জাতীয় বীর বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে।

ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনী ফেসবুকে জানায়, রুশ ট্যাংক বহর প্রবেশের সময় মেরিন ব্যাটেলিয়নের প্রকৌশলী হেনিচেস্ক ব্রিজের কাছে দায়িত্ব পালন করছিলেন ভোলোডিমিরোভিচ।

ইউক্রেনের মূল ভূখণ্ডের সঙ্গে ক্রিমিয়ার একমাত্র সংযোগস্থল ওই ব্রিজ ধ্বংস করতে স্বেচ্ছায় মাইন স্থাপন করতে গিয়েছিলেন তিনি। এ সময় রুশ বাহিনী তার দিকে অগ্রসর হওয়া শুরু করলে তিনি বুঝতে পারছিলেন তা কাছে নিরাপত্তার জন্য ফিউজ সেট করার পর্যান্ত সময় নেই। তাই রুশ বাহিনীর প্রবেশ ঠেকাতে নিজেকে উড়িয়ে দেন তিনি।

এর আগে, রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ না করে মৃত্যুকে বেছে নিয়েছিলেন ইউক্রেনের ১৩ সেনা কর্মকর্তা। কৃষ্ণ সাগরের ছোট্ট দ্বীপ স্নেক আইল্যান্ডে দায়িত্বপালনকালে আত্মসমর্পণে অস্বীকৃতি জানানোয় রাশিয়া বোমা হামলা চালিয়ে তাদের হত্যা করে।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়ার