ছোট পর্দার তারকা আফরান নিশোর সেই ভারতীয় ভক্ত মারা গেছেন


ছোট পর্দার তারকা অভিনেতা আফরান নিশো। দেশের সীমানা পেরিয়ে ওপার বাংলাতেও রয়েছে তার অগণিত ভক্ত। গত বছরের ৮ ডিসেম্বর নিজের জন্মদিন উপলক্ষে ওপার বাংলার ভক্তদের মনের আশা পূরণ করেছিলেন তিনি। ভিডিও কলে ভক্তদের সময় দিয়েছিলেন নিশো।

ওপার বাংলা থেকে ভিডিও কলে যুক্ত ছিলেন- রূপসা চ্যাটার্জি, সোহম চক্রবর্তী, দীপ্তি মুখার্জি, অ্যানজেলা প্রমুখ। তাদের সঙ্গে প্রায় এক ঘণ্টা আড্ডা দেন আফরান নিশো।

সে সময় রূপসা চ্যাটার্জি বলেন, ‘আমি আপনার ডাই হার্ট ফ্যান কি না জানি না। এতটুকু জানি, উঠতে, বসতে, খেতে, ঘুমাতে- সবখানেই নিশোকে দেখি।’

তিনি আরও জানান, জন্মদিনে তিনি কোনো কেক কাটেননি। কিন্তু কেকের টাকা দিয়ে কিছু দুস্থ মানুষকে খাইয়েছেন। শুধু তাই নয়, রূপসা তার হাতে নিশোর নামে ট্যাটু করেছেন। ভিডিও কলে সেটাও নিশোকে দেখান তিনি। ভক্তের এমন কাণ্ড দেখে বিস্ময় প্রকাশ করেন নিশো। তিনি ওই ভক্তকে জিজ্ঞাসা করেন, এটা কি সত্যি? রূপসা ট্যাটু দেখিয়ে বারবার বলেন, ‘হ্যাঁ, এটা সত্যি।’

আজ শুক্রবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন নিশোর সেই ভক্ত রূপসা। এদিন দুপুরে স্ত্রীর মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত করে ফেসবুক টাইমলাইনে রূপসার ছবি পোস্ট করে অনেকগুলো কান্নার ইমোজি দিয়েছেন তার স্বামী অজয় কুমার চ্যাটার্জি।

তিনি লিখেছেন- ‘শি ইজ নো মোর’।
ফেসবুকে ‘বাংলা নাটক’ নামে একটি গ্রুপের সদস্য ছিলেন রূপসা। সেখানে তিনি নিয়মিত নিশোর ছবি আপলোড করতেন। প্রিয় অভিনেতার নাটকের প্রশংসা করে স্ট্যাটাস দিতেন। ২১ ঘন্টা আগেও সেই গ্রুপে তিনি লিখেছিলেন- ”তাহলে কি ‘সিন্ডিকেট’ আসছে? অধীর অপেক্ষায় আছি আমরা।” এমনকি এখনো রূপসার ফেসবুক আইডির স্টোরিতে নিশোর ‘রেডরাম’ ওয়েব ফিল্মের ভিডিও দেখা যাচ্ছে।

রূপসার মৃত্যুর কারণ জানিয়ে বাংলা নাটক গ্রুপের এডমিনদের মধ্যে জনি মিয়া নামে একজন বলেন, ‘শুনেছিলাম, রূপসা দিদি ক্যানসারে ভুগছিলেন। বৃহস্পতিবার রাতে ব্রেন হ্যামারেজ হয়ে বিছানা থেকে পড়ে যান তিনি। রাত ১০টায় হাসপাতালে নেওয়া হয়। আজ সকাল ১০টায় রূপসা দিদি মারা যান।’

এদিকে রূপসার মৃত্যুর খবরটি তার প্রিয় অভিনেতা আফরান নিশোর কাছেও পৌঁছেছে। এমন ভক্তের মৃত্যুতে কষ্ট প্রকাশ করে এই অভিনেতা গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘যে কোনো মৃত্যুই বেদনায়ক। রূপসা দিদি আমার কাজকে পছন্দ করতেন, এ কারণেই হয়তো ট্যাটু করে আমার নামটি সঙ্গে রাখতে চাইতেন। তিনি আমাকে কলকাতায় যেতে বলতেন। যাওয়ারও ইচ্ছা ছিল। কিন্তু করোনাসহ নানা কারণে যাওয়া হয়নি। এই জন্য আরও বেশি খারাপ লাগছে।’

নিশো আরও বলেন, ‘রূপসা দিদির সঙ্গে আর দেখা হবে না। তবে কলকাতায় গেলে অবশ্যই তার বাসায় যাব। দিদির জন্য দোয়া করি, যেখানেই থাকুন, ভালো থাকুন।’