অবিলম্বে দ্রব্যমূলের দাম না কমালে হরতালের হুশিয়ারি

অবিলম্বে দ্রব্যমূলের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব থেকে সরে না এলে হরতালের হুশিয়ারি দিয়েছেন গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি। তিনি বলেন, ‘আমরা আরও শক্তি নিয়ে আসবো। জনগণ আরও শক্তি নিয়ে আপনাদের ঘেরাও করবে। দ্রব্যমূলের লাগাম ধরে নিন। পানির দাম, গ্যাসের দাম কমাতে হবে। দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব বাতিল করতে হবে। অচিরেই আমরা হরতালের ডাক দেবো। অপরাপর রাজনৈতিক দলগুলোরও সঙ্গে নিয়ে আমরা কর্মসূচি দেবো।’

বৃহস্পতিবার (৩ মার্চ) সচিবালয়ের সামনে তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বিক্ষোভপূর্ব সমাবেশ শেষে গণসংহতি আন্দোলনের একটি মিছিল বেরোয়। সে মিছিল সচিবালয়ে প্রবেশের সড়কে পুলিশ আটকে দেয়। এ সময় পুলিশ ও গণসংহতি আন্দোলনের নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাক্কাধাক্কি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে সেখানেই সমাবেশ করে গণসংহতি।

ভোজ্যতেল, গ্যাস, পানি, বিদুৎসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে গণসংহতি আন্দোলনের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভে সাকি বলেন, ‘কী অবস্থায় আমরা এই সমাবেশ করি তা আপনারা জানেন। দ্রব্যমূল্যে ঊর্ধ্বগতিতে দেশের মানুষের নাকাল অবস্থা। এক মুহূর্তের জন্য তারা কাজ থেকে মুক্তি পায় না। ফলে তারা সভা-সমাবেশগুলোত যোগ দিতে পারে না।’ সাকি আরও বলেন, ‘আজ সরকারের মন্ত্রীরা বলছে, মানুষের আয় বেড়েছে। এরা কী ধরনের রসিকতা করে। আজ বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, সিন্ডিকেটরা সব চালায়। তাহলে আপনারা কেন ক্ষমতায় আছেন? আসলে সিন্ডিকেটদের কোনও ক্ষমতা নেই। সব ক্ষমতা সরকারের নেতাকর্মীদের।’

সমাবেশে আরও ছিলেন কেন্দ্রীয় নির্বাহী সমন্বয়কারী আবুল হাসান রুবেল, রাজনৈতিক পরিষদের সদস্য তাসলিমা আখতার, ফিরোজ আহমেদ, মনির উদ্দীন পাপ্পু, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য বাচ্চু ভূঁইয়া, জুলহাসনাইন বাবু, দীপক রায়সহ অন্যান্য নেতারা।