জাতিসংঘ সংস্কারের উপযুক্ত সময় এখন, সকল দেশের ভাগ্য পাঁচটি দেশ দ্বারা নির্ধারিত হবে এটা হতে পারেনা: এরদোগান

শুক্রবার তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেপ এরদোগান বলেছেন, সময় এসেছে জাতিসংঘের সংস্কারের। তিনি বলেন, ‘যে ব্যবস্থায় জাতিসংঘের ১৯৩টি সদস্য দেশের ভাগ্য পাঁচটি দেশ দ্বারা নির্ধারিত হয় তা অন্যায্য। এ ব্যবস্থার আবার সংস্কার করা প্রয়োজন।’

‘যখন আমরা বলি যে, বিশ্বটি পাঁচটির বেশি দেশ নিয়ে গঠিত, আমরা সমস্ত মানবতার অধিকার এবং অভিন্ন স্বার্থ রক্ষা করার চেষ্টা করছি,’ এরদোগান অব্যাহত রেখেছিলেন। ‘আমরা একা আমাদের দেশের স্বার্থের জন্য এটি করি না।’

জাতিসংঘের সমালোচনায় এই প্রথম নয় তুরস্কের প্রেসিডেন্ট। তিনি প্রায় প্রতি বছর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে বক্তৃতা করার সময় সংস্কারের প্রয়োজনীয়তার কথা বলেন। এরদোগান, ২০২১ সালের অক্টোবরে অ্যাঙ্গোলা সফরের সময় দেশটির সংসদে বক্তৃতা করেছিলেন, মানবতার ভাগ্যকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জয়ী ‘মুষ্টিমেয় দেশের’ করুণায় ছেড়ে দেয়া উচিত নয়।

বৈশ্বিক ব্যবস্থায় যে বৈষম্য বজায় রয়েছে সে সম্পর্কে বলতে গিয়ে, তিনি বলেছিলেন যে ‘বিশ্ব পাঁচটি দেশেরও বেশি কিছু,’ জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য পাঁচটি দেশকে উল্লেখ করে, যারা যুদ্ধে বিজয়ী হিসাবে মর্যাদা অর্জন করেছে।

এরদোগানের বক্তব্যের বিষয়ে মন্তব্য করে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ বলেছেন, ‘প্রেসিডেন্ট এরদোগানের বাগ্মিতা সর্বজনবিদিত, এবং তিনি বিভিন্ন বিষয়ে নির্দ্বিধায় কথা বলেন। আমি তার সাথে একমত যে পৃথিবীর ভাগ্য নিয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচ স্থায়ী সদস্যের কোনো অধিকার নেই। এবং তারা তা করতে চায় না।’

‘তারা জাতিসংঘের সনদে নিহিত ক্ষমতাগুলি সুনির্দিষ্টভাবে পাওয়ার আকাঙ্ক্ষা করে,’ ল্যাভরভ বলেন, ‘সনদটি বিশ্ব সম্প্রদায়ের সকল সদস্যের সম্মিলিত ইচ্ছাকে প্রতিফলিত করে এবং পাঁচটি সদস্য বিশ্বের পরিস্থিতির জন্য বিশেষ দায়িত্ব বহন করে, প্রাথমিকভাবে একটি বৈশ্বিক সংঘাত প্রতিরোধ করার জন্য।’ সূত্র: তাস।