কক্সবাজারে ইয়াবাসহ স্ত্রী আটক, পালিয়েছে ‘সাংবাদিক’ স্বামী

কক্সবাজার শহরের বিজিবি ক্যাম্প এলাকার সিকদারপাড়ায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অভিযান চলে। এসময় ইয়াবা কারবারী স্ত্রী অজুফা ইয়াছমিন (৩৬) কে আভিযানিক দলের মুখে ফেলে পালিয়ে গেছেন ‘সাংবাদিক’ নুরুল আলম মুজাহিদ (৩৯)। সে এখন পালিয়ে টেকনাফের নিজ এলাকার রঙ্গিখালীতে আত্মগোপন করেছে বলে নিশ্চিত করেছে একাধিক সূত্র। অভিযানে নুরুল দম্পতির কাছে প্রায় ৯ হাজার চারশো পিস ইয়াবা মিলেছে বলে জানিয়েছে জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। তবে অভিযান টের পেয়ে স্বামী নুরুল পালাতে সক্ষম হলেও আটক হয়েছে স্ত্রী অজুফা ইয়াছমিন। পলাতক মুজাহিদ ঢাকা থেকে প্রকাশিত একটি পত্রিকায় কক্সবাজারস্থ স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে কাজ করেন বলে জানা যায়। সোমবার (২১ মার্চ) সন্ধ্যা ৭টার দিকে এঘটনা ঘটে। জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী উপ-পরিদর্শক মো. সহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালিত হয়।

জানা যায়, নুরুল তার স্ত্রী অজুফাকে নিয়ে শহরের বিজিবিক্যাম্পের সিকদার পাড়ার একটি চার তলা ভবনের নীচ তলায় সাংবাদিক পরিচয়ে ভাড়া থাকতেন। দীর্ঘদিন ধরে এই দম্পতি মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত রয়েছে বলে তথ্য দিয়েছেন স্থানীয়রা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, নুরুল সাংবাদিক পরিচয়ে তার স্ত্রী অজুফাকে দিয়ে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা পাচার করেছে। তাদের উভয়ের বাড়ি টেকনাফ হওয়ায় ইয়াবা পাচার তাদের কাছে সহজলভ্য একটি ব্যাপার।

নুরুল টেকনাফের হ্নীলার দক্ষিণ হ্নীলা এলাকার রঙ্গীখালী গ্রামের মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে এবং তার স্ত্রী অজুফা একই এলাকার মৃত জাফর আহমদের মেয়ে। প্রায় বছর তিনেক ধরে তারা কক্সবাজার শহরের সিকদার পাড়ায় বাসা ভাড়া নিয়ে থাকছেন। মাস তিনেক পূর্বেও নুরুলের মেয়ে ও তার জামাই বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ মিরসরাই থানা পুলিশের হাতে আটক হয়। এব্যাপারে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কক্সবাজার জেলা কর্মকর্তা রুহুল আমিন জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে আমাদের একটি আভিযানিক দল উক্ত নারী মাদক কারবারীকে আটক করেছে। উদ্ধারকৃত ইয়াবার মূল মালিক নুরুল অভিযান টের পেয়ে পালিয়েছে। তাকে আটক করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।