অনৈতিক সম্পর্ক দেখে বাবাকে বলে দিবে, সেই ভয়ে মেয়েকে হত্যা করেন মা

বরিশালে অনৈতিক কার্যকলাপ দেখে ফেলায় ১৩ বছরের শিশু সন্তানকে গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা করেছে মা ও তার পরকীয়া প্রেমিক। বরিশাল সদর উপজেলার শায়েস্তাবাদ ইউনিয়নের ছোট রাজাপুর গ্রামে এই ঘটনা ঘটেছে।

ঘটনা সূত্রে জানা যায়, ইউনিয়নের ছোট রাজাপুর গ্রামের সোহরাব হাওলাদারের স্ত্রী লিপি আক্তার। তার সঙ্গে পরকীয়ার সম্পর্কে জড়ায় একই ইউনিয়নের রামকাঠি গ্রামের কবির খান। ঘটনার দিন, গত (২৭ মে) দুপুরবেলা লিপি আক্তার পরকীয়া প্রেমিক কবির খানের সঙ্গে অনৈতিক কর্মকাণ্ড লিপ্ত হন। এ সময় মাকে তার পরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গ আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলে মেয়ে তন্নি আক্তার( ১৩)। মায়ের এই কর্মকাণ্ড বাবাকে বলে দিবে বলে জানান তন্নি।

এ সময় ঘাতক মা লিপি আক্তার ও তার পরকীয়া প্রেমিক কবির খান মিলে তন্নিকে গলায় গামছা পেঁচিয়ে হত্যা করেন। হত্যা নিশ্চিত করে তন্নিকে গলায় দড়ি দিয়ে ঘরে ঝুলিয়ে রাখেন। এরপর তন্নি আত্মহত্যা করেছে বলে বলতে থাকে মা লিপি আক্তার।

কাউনিয়া থানা পুলিশের পরিদর্শক (ওসি/তদন্ত) ছগির হোসেন জানান, ১৩ বছরের একটি মেয়ে আত্মহত্যা করেছে বিষয়টি সন্দেহজনক হওয়া এবং শেবাচিম হাসপাতালের চিকিৎসকেরা এই বিয়োগান্ত নিয়ে ভিন্ন কিছুর আলামত দেন। এই সব বিষয়াদী মাথায় রেখে ঘটনাটি তদন্ত শুরু করা হয় এবং মেয়েটির মায়ের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছিল। একপর্যায়ে আচরণ সন্দেহজনক হলে লিপি আক্তারকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে বেড়িয়ে আসে আসল রহস্য। অপর আসামি পরকীয়া প্রেমিক কবির খান পলাতক রয়েছে। এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন নিহত তন্নির বাবা সোহরাব হাওলাদার।