ডেকে নিয়ে যুবককে হত্যাচেষ্টা, প্রেমিকাসহ কারাগারে ৪

প্রেমিককে ডেকে নিয়ে হাতুড়িপেটা ও ছুরিকাঘাতে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে প্রেমিকাসহ চারজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার (৪ জুন) বিকেলে আদালতের মাধ্যমে তাদের নোয়াখালী জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেফতাররা হলেন- বেগমগঞ্জের নরোত্তমপুর গ্রামের সেলিম মিয়ার ছেলে শান্ত (২০), একই গ্রামের এসহাক মিয়ার ছেলে রায়হান (২০), মাহবুবুর রহমানের ছেলে মেহেদী হাসান (২০) ও লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ পৌরসভার খোনার বাড়ির আমির হোসেনের মেয়ে আকলিমা আক্তার রুমি (২৩)। ভুক্তভোগী সুমন বেগমগঞ্জের নরোত্তমপুর গ্রামের নুরুল ইসলাম মিয়ার ছেলে (২২)।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, একমাস আগে আকলিমা আক্তার রুমির সঙ্গে মোবাইলে পরিচয় হয় সুমনের। তাদের দুজনের একাধিকবার মোবাইলে কথা হয়। শুক্রবার সন্ধ্যায় সুমনকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে সোনাইমুড়ী মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের সামনে আসতে বলেন রুমি। সুমন তার বন্ধু চৌমুহনী পৌরসভার করিমপুর এলাকার শাহ জাহানের ছেলে মো. ইয়াছিনকে সঙ্গে নিয়ে ওই এলাকায় যান। সেখানে গেলে প্রেমিকা আকলিমা আক্তার রুমিসহ তার কয়েকজন সঙ্গী সুমনকে আটক করে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে আহত করে।

এক পর্যায়ে একটি ধারালো ছুরি দিয়ে সুমনকে জবাই করতে চাইলে তার চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে তাদের আটক করেন। পরবর্তীতে সোনাইমুড়ী থানা পুলিশের কাছে তাদের সোপর্দ করেন স্থানীয়রা। রক্তাক্ত অবস্থায় সুমনকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য নোয়াখালী ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে পাঠানো হয়।

সোনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হারুনুর রশিদ জাগো নিউজকে বলেন, এ ঘটনায় ভিকটিম সুমনের বড় ভাই নুর হোসেন বাদী হয়ে সোনাইমুড়ী থানায় হত্যাচেষ্টা মামলা করেছেন। ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে চারজনকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।