মহানবীকে কটূক্তি করায় ভারতকে ক্ষমা চাইতে হবে, দাবি ১৫ দেশের

মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) কে নিয়ে কটুক্তি করার জেরে মুসলিম বিশ্বের ক্রমবর্ধমান ক্ষোভ ও তোপের মুখে পড়েছে ভারত। মধ্যপ্রাচ্যের প্রভাবশালী দেশগুলোসহ এখন পর্যন্ত বিশ্বের অন্তত ১৫টি দেশ ভারতের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে। এরমধ্যে ইরান, ইরাক, কুয়েত, কাতার, সৌদি আরব, ওমান, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ইরান, জর্ডান, আফগানিস্তান, বাহরাইন, মালদ্বীপ, লিবিয়া এবং ইন্দোনেশিয়া সহ অন্তত ১৫টি দেশ বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য ভারতের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদ জানিয়েছে। এছাড়া দেশগুলো তাদের নিন্দা ও নবী মুহাম্মদের সম্পর্কে বিতর্কিত মন্তব্যের কারণে ভারত সরকারকে ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানিয়েছে। মঙ্গলবার (৭ জুন) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

ভারতের কট্টর হিন্দুত্ববাদী রাজনৈতিক দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) সাবেক মুখপাত্র নুপুর শর্মা এক টেলিভিশন শোতে অংশ নিয়ে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে বিতর্কিত ওই মন্তব্য করেছিলেন। পরে দলটির নয়াদিল্লি শাখার গণমাধ্যম প্রধান নবীন জিন্দালও নুপুর শর্মার মন্তব্যের সমর্থনে টুইট করেন। তাদের এই মন্তব্য দেশটির সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়কে ক্ষুব্ধ করে তোলে। এমনকি অভিযুক্তদের মন্তব্যের জেরে ভারতের কয়েকটি রাজ্যের মুসলিমরা বিক্ষিপ্তভাবে প্রতিবাদ বিক্ষোভ করেন। আর এর রেশ ভারতের গণ্ডি ছাড়িয়ে বাইরের বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে।

উল্লেখ্য, মহানবী (সা.) ও তার সবচেয়ে ছোট স্ত্রীকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেন নূপুর শর্মা। গত সপ্তাহে টেলিভিশন বিতর্কে তিনি ওই মন্তব্য করার পর মুসলিমদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। এমনকি ভারতেই সংঘর্ষ হয়েছে। নূপুরকে গ্রেপ্তারের দাবি উঠেছে। এই ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে মুসলিম দেশগুলোতে। ফলে মুসলিম দেশগুলোর ক্ষোভ প্রশমনের জন্য সরকার নূপুর শর্মা ও নবীন কুমার জিন্দালকে বরখাস্ত করে রবিবার। এদিনই সরকারের বক্তব্যে মহানবী (সা.)কে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যের কথা সরাসরি উল্লেখ না করে, নূপুরের কড়া সমালোচনা করা হয়েছে। জবাবে নূপুর শর্মা তার বক্তব্য প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছেন।