প’টুয়াখালীতে অ’ন্য জে’লার অ’ধিবাসীদের প্র’বেশে নি’ষেধাজ্ঞা

বাংলাদেশ

করো’না প্র’তি রো’ধে সর্বোচ্চ সত র্ক’তার জন্য কু’য়াকাটা প’র্যটন এলাকার সকল হোটেল-মোটেল ব’ন্ধের নি’র্দেশনার পর এবার প’টুয়াখালী জে’লায় সড়ক ও নৌপথে বহিরাগত অর্থাৎ অন্য জেলার বা’সিন্ধাদের জেলায় প্রবেশের ওপর নি’ষেধাজ্ঞা আ’রোপ করা হয়েছে। ই’তিমধ্যে ঢাকা-পটুয়াখালী নৌ’রুটে চলাচলরত সকল যা’ত্রীবাহী ডাব’ল ডে’কারের সকল ল’ঞ্চের মা’লিকসহ সংশ্লিষ্টদের জেলা প্র’শাসনের প’ক্ষ থেকে এ নি’র্দেশনা দে’য়া হয়েছে।

পাশাপাশি নি’র্দেশনা অ’মান্যকারীদের বি’রুদ্ধে আ’ইনানুগ ব্য’বস্থা গ্র’হণেরও কথা জানিয়েছেন জেলা পু’লিশ সুপার। পু’লিশের প’ক্ষ সচেতনতা নিয়ে মা’ইকিং চালানো হচ্ছে। সা’বান দিয়ে হাত ধু’য়ে থা’নায় প্রবেশের ব্য’তিক্রমধর্মী ব্যবস্থাও করা হয়েছে। এর আ’গে বুধবার ‘রাত আ’টটায় কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মুনিবুর রহমান সরকারের দেওয়া এসব নি’র্দেশনা পা’লনের জন্য মা’ইকিং করেছেন। হোটেল মালিকদের পর্য’টকের ভ্র’মণ বন্ধে’ বৃহস্পতিবার থেকে নতুন হোটেল বুকিং ব’ন্ধের নি’র্দেশনাসহ যারা এখন অ’বস্থান করছেন তাদের কু’য়াকাটা ছা’ড়তে নি’র্দেশ দেওয়া হয়েছে।

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে, সড়ক ও নৌপথে অন্য জেলার কোন লোক পটুয়াখালী জেলায় যেন না আসে। যদি এসে থাকে তবে তাদেরকে লঞ্চ বা গাড়িতেই রেখে পুনরায় ফেরত পাঠাতে হবে। কোন উপায়ই অন্য জেলার কোন লো’ক যেন প’টুয়াখালী জে’য় না আ’সতে পা’রে সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্য’বস্থা গ্র’হণ করা হয়েছে। এর পাশাপাশি প’টুয়াখালী জে’লায় পু’লিশ প্র’শাসনের প’ক্ষ থেকে জনগনকে গু জবে কান না দিয়ে আ’ত’ঙ্কিত না হতে বলা হয়েছে। এদিকে জেলার সকল থানার প্র’বেশদ্বারে হা’ত ধো’য়ার ব্য’বস্থা করা হয়েছে। সেখানে বেসিং, সাবান, টিস্যু পেপার রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এখন থেকে সবাইকে হাত ধু’য়ে থা’নায় প্র’বেশ করার জন্য বলা হচ্ছে।

কা’রো’নাভা’ইরাস সং ক্রমণের ক্ষেত্রে’ব’ন্দর নগর চট্টগ্রাম জেলা এই মুহূর্তে স’র্বোচ্চ বেশি ঝুঁ’কিতে আছে বলে জানিয়েছেন জেলা সিভিল সার্জন শেখ ফজলে রাব্বী মিয়া। তিনি বলেছেন, ‘চট্টগ্রাম জেলা এই মুহূর্তে সর্বোচ্চ ঝুঁ’কিতে আছে। কা’রণ আমাদের দু’টিবন্দর, একটি বিমানবন্দর ও অ’পরটি স’মুদ্র বন্দর। দু’টি বন্দর দিয়েই সং ক্র’মণের সম্ভাবনা রয়েছে। তাই এ’ন্ট্রি পয়েন্টেই যদি সং ক্রমণকা’রীকে ঠে’কিয়ে দেয়া না যায়, তাহলে প’রিস্থিতি নি’য়ন্ত্রণে রাখা যাবে না।’ ই’তালি ফেরত প্র’বাসীদের কা’রণে চট্টগ্রামে ঝুঁ’কির প’রিমাণ বেড়ে যাচ্ছে বলেও জানান তিনি। সোমবার (১৬ মার্চ) বিকেল ৪টায় চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয়ে ‌‘হাম-রুবেলা টি’কাদান ক্যাম্পেইন-২০২০’ উ’পলক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ সব কথা বলেন।’

সি’ভিল সার্জন বলেন, ‘আ’মাদের শা’হ আমানত বিমানবন্দরে ইতিমধ্যেই থা’র্মাল স্ক্যা’নার ব’সানো হয়েছে। এছাড়া স’মুদ্রবন্দরে হ্যা’ন্ড থা’র্মাল স্ক্যা’নারের মাধ্যমে প’রীক্ষা করা হচ্ছে। ক’রো’নাদুর্গ’ত এলাকার মধ্যে ই’তালি থেকেই সবচেয়ে বেশি প্রবাসীরা ফিরছেন। সাধারণত একজন করোনা আ ক্রা’ন্ত রো গীর উপস’র্গ দেখা দিতে ২ থেকে ১৪ দিন সময় লাগে। তাই বিমানবন্দরে স্ক্রি’নিংয়ে করো’নায় সং ক্রমিত ব্যক্তি বেরিয়েও যেতে পারে। এ সব কা রণে আমরা বিমানবন্দর থেকে প্রতি মুহূর্তে আপডেট তথ্য নিচ্ছি এবং প্রবাসীদের হো’ম কো’য়ারেন্টাইন নি’শ্চিত করতে কা’জ করছি।’ ফ’জলে রাব্বী মিয়া বলেন, ‘এছাড়া ক’রো’নাদু’র্গত এলাকা থেকে আগত প্র’বাসীদের কারও যদি শরী’রে তা’পমাত্রা বেশি পাওয়া যায় তাহলে সঙ্গে সঙ্গেই বিমানবন্দর থেকে তাকে হাস পা’তালে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে।’ হো’ম কো’য়ারেন্টাইনের বিষয়ে সি’ভিল সা’র্জন বলেন, ‘চট্টগ্রামের হোম কো’য়ারেন্টাইন ত’দারকিতে একটি শ’ক্তিশালী কমিটি কাজ করছে। এতে জেলা প্রশাসক, স্বা’স্থ্য বি’ভাগ ও আ’ইনশৃঙ্খলা বা’হিনীও আছে। বি’মানবন্দর থেকে প্রবাস ফেরত যা’ত্রীদের তা’লিকা স্থানীয় প্রশাসন ও ডি’জিএফআইকে সরবরাহ করা হচ্ছে। তা’রাই হোম কো’য়ারেন্টাইনের বি’ষয়টি ত’দারকি করছেন।’

তিনি বলেন, ‘হোম কোয়ারেন্টাইনের ক্ষেত্রে পরিবারকে বেশি সচেতন হতে হবে। প্রবাস থেকে আগত সদস্যকে একটি আলাদা ঘরে ১৪ দিনে জন্য আলাদা করে রাখতে হবে। বা’ড়ির পাশের মা’নুষদের ব’লব, আ’পনারা প্র’বাসীদের শ’ত্রু ভাববেন না। তারা তো দেশের জন্যই অর্থ উপার্জন ক’রেন। তারা মূলত, একটি বৈ’শ্বিক পরিস্থিতির শি’কার। তাই তাদের স’র্বা’ত্মকভাবে সহযোগিতা করুন। প্রয়োজনে তাদের পরিবারের সদস্যদের বা’জার-সদাই করে দিন। এ ক্ষেত্রে যোগাযোগ হবে অবশ্যই মোবাইলে। কো’নোভাবেই যেন তারা রে’সিজমের (বর্ণবাদ) শি’কার না হন।’ চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘণ্টার পরি’স্থিতি তু’লে ধরে শেখ ফজলে রাব্বী মিয়া বলেন, ‘গতকাল সকাল ৮টা থেকে আজ সকাল ৮ টা পর্যন্ত ৮ জনকে হোম কো’য়ারেন্টাইনে পা’ঠানো হয়েছে।

এছাড়া এর আগে চট্টগ্রামে হো’ম কো’য়ারেন্টাইনে ছিল ২১ জন। কোনো প্র’বাসী যদি হো’ম কো’য়ারেন্টাইন না মানেন তবে তাকে হা’স পা’তালে ভ’র্তি করা হবে।’ চট্টগ্রাম বি’শ্ববিদ্যালয়ে স’ন্দেহভাজন ৬ শিক্ষার্থী ক’রো’না’মুক্ত জানিয়ে সিভিল সার্জন বলেন, ‘সেই ৬ যুবক ক’রো’না ভা’ইরা সমুক্ত। আমরা পরীক্ষা করে কোনো আলা মত পাইনি। তাদের মধ্যে ই’তালি ফে’রত যুবক ছা’ড়া’ অন্য ৫ জনকে ১৪ দিনের জন্য হোম কো’য়ারে’ন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। আর ই’তালি থেকে আ’সা যু’বকের ১৩ দিন অ’তিবাহিত হ’ওয়ায় তাকে ১ দিন কো’য়ারে’ন্টাইনে থাকা লাগবে।’