আম্ফানে লন্ডভন্ড কলকাতাসহ গোটা পশ্চিমবঙ্গ

আন্তর্জাতিক

ভ’য়াল ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে তছনছ হয়ে পড়েছে ভা’রতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য। বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে অ’তি প্রবল এই ঘূর্ণিঝড়টি রাজ্যটিতে আ’ঘা'ত হানে বলে জানিয়েছে দেশটির আবহাওয়া দফতর। তখন এর গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ১৫৫ থেকে ১৬৫ কিলোমিটার। সর্বোচ্চ গতিবেগ ১৮৫ কিলোমিটার।

রাত ৮টার দিকে কলকাতায় আ’ঘা'ত হানা সেই ঝড়ের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় প্রায় ১৩৩ কিলোমিটার। ফলে লন্ডভন্ড পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে কলকাতাসহ উত্তর ও দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জে’লা এবং পূর্ব মেদিনীপুরে। এছাড়া হাওড়া, হুগলি এবং পশ্চিম মেদিনীপুরের অবস্থাও ভ’য়াবহ বলে জানাচ্ছে আনন্দবাজার পত্রিকা।

হাজার হাজার বাড়ি এবং গাছপালা ভাঙার খবর পাওয়া গেছে। তবে বাস্তবে ক্ষয়ক্ষ'তির পরিমাণ এর অনেক গু'ণ বাড়বে বলে আশ’ঙ্কা করা হচ্ছে। সবশেষ খবরে কলকাতাসহ বিভিন্ন জে’লায় অন্তত ১২ জনের মৃ'’ত্যুর খবর পাওয়া গেছে বলে জানিয়ে কর্তৃপক্ষ। এরমধ্যে ৩ জন মা’রা গেছে কলকাতায়।

কলকাতা পুলিশ সূত্রের বরাতে আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, কলকাতায় এখনও পর্যন্ত ৩ জনের মৃ'’ত্যুর খবর পাওয়া গেছে তাদের মধ্যে তালতলা এলাকায় একজন মা’রা গেছেন বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে। এছাড়া রিজেন্ট পার্ক থা’না এলাকায় বাড়ির উপর গাছ ভেঙ্গে প্রা’ণ হারিয়েছে মা ও ছে’লে।

গোটা রাজ্যে ধ্বং'স হয়ে গেছে হাজার হাজার কাঁচা বাড়ি, জমির ফসল। উপড়ে পড়েছে বিদ্যুতের খুঁটি। মোবাইল টাওয়ার। ভেঙে গেছে বহু পুরোনো বাড়িঘর। ভেঙেছে সুন্দরবন অঞ্চলের বহু নদীর বাঁধ। প্লাবিত হয়েছে আশপাশের গ্রাম। মা’রা গেছে বহু গবাদিপশু।
বুধবার দুপুর ৩টার দিকে ঘূর্ণিঝড়টির স্থলভূমিতে আ’ঘা'ত হানার প্রক্রিয়া শুরু হয়। সন্ধ্যা ৭টার দিকে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার সুন্দরবন উপকূলে আছড়ে পড়ে আম্ফান। ভা’রতের কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতরের পরিচালক মৃ'’ত্যুঞ্জয় মহাপাত্র জানান, ঘূর্ণিঝড়ের কেন্দ্র সন্ধ্যা ৬টার দিকে অর্ধেকটা ঢুকে পড়ে স্থলভাগে।

রাজ্যটিরে জে’লগু'লো থেকে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষ'তির খবর আসতে শুরু করেছে। বিভিন্ন জায়গায় ঘরবাড়ি ভেঙে পড়ার পাশাপাশি উড়ে গেছে চাল। ভেঙে পড়েছে গাছপালা। উপকূল এলাকায় সমুদ্রে বেড়েছে জলোচ্ছ্বাস। আম্ফানের দাপট বিকেলের পর থেকে তা আরও বাড়ছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

সর্বত্র ঝোড়ো হাওয়ার সঙ্গে ছিল বৃষ্টি। ঝড়ের আ’ঘা'তে ঘড়বাড়ি ভাঙার পাশাপাশি গাছপালা উপড়ে যায়। ভেঙে যায় জেটিও। সকাল থেকেই ঝোড়ো হাওয়ার সঙ্গে বৃষ্টি শুরু হয় উপকূলীয় এলাকায়। সকাল থেকেই ছিল সমুদ্র উত্তাল। প্রবল জলোচ্ছ্বাস শুরু হয়। অনেক স্থানে বাঁধও ক্ষ'তিগ্রস্ত হয়ে পড়ে।

দুই চব্বিশ পরগণা শেষ এবং কলকাতা একেবারে ধ্বং'সস্তুপে পরিণত হয়েছে মন্তব্য করে পশ্চিমবঙ্গ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় বলেছেন, গোটা ধ্বং'সের চিত্র বুঝতে ১০ থেকে ১২ দিন লেগে যাব'ে। একদিনে এই ক্ষয়ক্ষ'তি পরিমাপ করা সম্ভব নয়।

আম্ফানের তা’ণ্ডবের পর বুধবার রাতে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে মমতা বন্দোপাধ্যায় বলেন, ঘূর্ণিঝড়ের তা’ণ্ডবে ১০ থেকে ১২ জনের মতো মানুষের মা’রা যাওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে। আম্ফানের ক্ষয়ক্ষ'তি লাখ কোটি ছাড়িয়ে যেতে পারে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমা'দেরকে সবকিছুই পুনর্নির্মাণ করতে হবে।